আজ রবিবার,১০ই মাঘ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ,২৪শে জানুয়ারি ২০২১ খ্রিস্টাব্দ,সকাল ৬:৪৪

আলোকিত প্রদীপ

Print This Post Print This Post

আল্লাহ তায়ালার বড় একটি দান হলো আমাদের সন্তান। তিনি কাউকে পুত্র সন্তান দান করেন বা কন্যা সন্তান। আবার কাউকে তিনি জময সন্তান দান করেন। আবার তিনি চাইলে কাউকে নিঃসন্তানও করে রাখেন। সবই আল্লাহ তায়ালা কর্তৃক আমাদের প্রতি পরীক্ষাস্বরূপ।

আমাদের প্রত্যেকের নিজেদের সন্তানকে নিয়ে কত স্বপ্ন! কেউ নিজেদের সন্তানকে ডাক্তার বানাতে চায় কেউ ইঞ্জিয়ার অথবা কেউ অধ্যাপক, বি.সি.এস.ক্যাডারসহ বিভিন্ন রকমের জাগতিক শিক্ষায় শিক্ষিত করতে চায়। হাতেগোনা কম সংখ্যক লোক আছেন যারা নিজেদের সন্তানদেরকে ইসলামি শিক্ষায় শিক্ষিত করেন।

আমাদের সন্তানদেরকে যে জাগতিক শিক্ষায় শিক্ষিত করতে পারব না,বিষয়টা কিন্তু তেমনও না। হাদিসের বানী, প্রত্যেক মুসলিম নর-নারীর জন্য ইলম অন্বেষণ করা ফরজ। আর ইলম বলতে দ্বীনি ইলম বুঝানো হয়েছে। তাই প্রতিটা পিতা-মাতার দায়িত্ব হলো তাদের সন্তানদেরকে জাগতিক শিক্ষায় শিক্ষিত করার পূর্বে দ্বীনি শিক্ষায় শিক্ষিত করানো।

আপনি যখন মারা যাবেন তখন আপনার সমস্ত আমলের দরজা বন্ধ হয়ে যাবে। শুধু মাত্র তিনটি আমল জারি বা অব্যাহত থাকবে তার মধ্যে একটি হলো নেকসন্তান। যে নেকসন্তান নামক আলোকিত প্রদীপের আলো আপনি কবরে শায়িত থেকেই পেতে থাকবেন।

হযরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন:

” মানুষ মৃত্যুবরণ করলে তার যাবতীয় আমল বন্ধ হয়ে যায়, তবে ৩ টি আমল বন্ধ হয় না-

১. সদকায়ে জারিয়া
২. এমন জ্ঞান-যার দ্বারা উপকৃত হওয়া যায়
৩. এমন নেক সন্তান- যে তার জন্য দু‘আ করে (সহিহ মুসলিম, হা/৪৩১০)

আল্লাহ তায়ালা আমাদের প্রত্যেকের সন্তানদেরকে আলোকিত প্রদীপরূপে গড়ে তুলতে সাহায্য করুন। আমীন।

লেখক : মুহা: আব্দুল্লাহ আল মামুন, ঝিনাইদহ

এ জাতীয় আরো সংবাদ