আজ বুধবার,১৩ই শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,২৮শে জুলাই ২০২১ খ্রিস্টাব্দ,রাত ১১:০৫

ইসলামের দৃষ্টিতে সন্তান নষ্ট

Print This Post Print This Post

ইসলামী ডেস্ক :
আমাদের মধ্যে অনেক বোন নিজের সন্তান নষ্ট করতে কোনো দ্বিধাবোধ করেন না। তাদের কাছে অনেক সময় তাদের ক্যারিয়ার বড় হয়ে যায়। চাকুরি পাননি; বেকার, তাই সন্তানকে অনায়াসে নষ্ট করে ফেলেন এমন ঘটনা একটা দুইটা নয় অহরহ ঘটছে। এই মহাপাপটা করার কারণে অনেকে ভবিষ্যতে মা হওয়ার আশা হারিয়ে ফেলেন।

মহান আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা‘য়ালা বলেন,
.
“আর তোমরা তোমাদের সন্তানদেরকে দারিদ্ৰতার ভয়ে হত্যা করো না। তাদেরকেও আমিই রিযক দেই এবং তোমাদেরকেও। নিশ্চয় তাদেরকে হত্যা করা মহাপাপ।”

(সূরা ইসরা -আয়াত ৩১)

আল্লাহ তায়ালা অন্যত্রে বলেন,
” এমন কত জীবজন্তু রয়েছে যারা নিজেদের খাদ্য মজুদ রাখে না; আল্লাহই রিযক দান করেন, তাদেরকে ও তোমাদেরকে এবং তিনি সর্বশ্রোতা ও সর্বজ্ঞ। (সূরা আনকাবুত-৬০)

এক হাদীসে এসেছে, আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে জিজ্ঞেস করলাম, সবচেয়ে বড় গুনাহ কোনটি? তিনি বললেন, আল্লাহর সাথে কাউকে শরীক করা অথচ তিনি তোমাকে সৃষ্টি করেছেন। আমি বললাম, এটা অবশ্যই বড় কিন্তু তারপর কি? তিনি বললেন, এবং তোমার সাথে খাবে এ ভয়ে তোমার সন্তানকে হত্যা করা”। [বুখারীঃ ৪৪৭৭]

আল্লাহ তায়ালা আপনাকে সন্তান দিয়েছেন,
আর আপনি সেইটা কনসিভ করে নষ্ট করে ফেলছেন?
এ কারণে আল্লাহর কাছে আপনার হিসাব দেওয়া লাগবে।
আপনি কি দেখেননি কত মানুষের সন্তান হয় না?
যাদের নির্ঘুমে রাত কাটে একটা সন্তানের আশায়।
যাদের কোটি টাকার সম্পদ থাকা সত্বেও কোনো শান্তি নেই কেবল একটা সন্তান না থাকার কারণে।
তাই আল্লাহ তায়ালা আপনাকে সন্তান নামক নিয়ামত দিয়েছেন, সেই নিয়ামতের যথাযথ ক্বদর করুন।

না হলে একদিন আপসোস করা লাগবে।
আর সেইদিন আপসোস করেও কোনো কাজে আসবে না। একজন নারী জীবনের পূর্ণতা আসে সন্তানলাভের পরে। তাই দাঁত থাকতে দাঁতের কদর করুন।

আল্লাহ তায়ালা বলেন: “তিনি যাকে ইচ্ছা কন্যা সন্তান দান করেন এবং যাকে ইচ্ছা পুত্র সন্তান দান করেন। অথবা তাদেরকে দান করেন পুত্র ও কন্যা উভয়ই এবং যাকে ইচ্ছা তাকে করে দেন বন্ধ্যা, তিনি সর্বজ্ঞ, সর্বশক্তিমান।“ [সূরা শূরা/৪৯-৫০)

আল্লাহ তায়ালা আমাদের বুঝার তৌফিক দিন।(আমীন)

লেখক : মুহা: আব্দুল্লাহ আল মামুন, ঝিনাইদহ

এ জাতীয় আরো সংবাদ