আজ রবিবার,১০ই মাঘ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ,২৪শে জানুয়ারি ২০২১ খ্রিস্টাব্দ,ভোর ৫:৪৪

এত দুঃখ কেন?

Print This Post Print This Post

আমি কেন এটা পারি না, ওটা পারি না?

আমার কেন চাকুরীটা হলো না?

আমার কেন ব্যবসাটা লোকসান গেল?

আমার কেন এত দুঃখ-কষ্ট?

আমার কেন সন্তান মারা গেল?

আমার জীবনে কেন ব্যর্থতায় ভরা?

আমাকে কেন মানুষে ভালোবাসে না?

আমি কেন এতো গরীব?

এই রকম হাজারো অভিযোগ। আমাদের অভিযোগের যেন কোনো জুড়ি নাই। আমাদের ইচ্ছার বিপরীত কিছু ঘটলেই আমরা আল্লাহ তায়ালার নিকট জেরা করতে থাকি।

আমাদের জীবনে অপ্রত্যাশিত কোনো কিছু ঘটে যাওয়া স্বাভাবিক। তাই বলে আমাদের কারো উচিত নয় যে,অপ্রত্যাশিত ঘটনার জন্য আল্লাহ তায়ালার নিকট প্রশ্ন করার। আমাদের উচিত ধৈর্যধারণ করে আল্লাহ তায়ালার নিকট কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করার এবং তাঁর সাহায্য কামনা করার।

আমাদের কারো জানা নেই যে, কোনটা আমাদের জন্য কল্যানকর আর কোনটা অকল্যানকর। প্রকৃতপক্ষে আল্লাহ তায়ালাই ভালো জানেন আমাদের জন্য কোনটা কল্যানকর।

আল্লাহ তায়ালা বলেন:
“হয়তো তোমরা যা অপছন্দ করো তাই তোমাদের জন্য কল্যানকর আর তোমরা যা পছন্দ করো সেটা হতে পারে অকল্যানকর। বস্তুত আল্লাহ তায়ালা জানেন কিন্তু তোমরা জানো না “(১)

রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন:

” তোমরা উপকারী বিষয়ে আগ্রহী হও। আল্লাহর কাছে সাহায্য প্রার্থনা করো। অক্ষম হয়ে যেয়ো না। যদি তুমি কোনো বিপদে আক্রান্ত হও,তবে বলো না যে,যদি আমি এমনটা করতাম তাহলে এটা হতো,ওটা হতো। বরং তুমি বলো আল্লাহ তায়ালার পক্ষ থেকে এটি নির্ধারিত এবং তিনি যা চান তা করেন। কারন “যদি” শব্দটা শয়তানের কাছের দরজা খুলে দেয়”(২)

ফুটনোট

(১) সুরা বাকারা,আয়াত ২১৬
(২) সহিহ মুসলিম,২৬৬৪

লেখক : মুহা: আব্দুল্লাহ আল মামুন, ঝিনাইদহ।

এ জাতীয় আরো সংবাদ