আজ শুক্রবার,৬ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ,২০শে মে ২০২২ খ্রিস্টাব্দ,সকাল ৬:৪৬

নবীজি (সা.) এর ব্যবহৃত জুব্বা

Print This Post Print This Post

শৈলবার্তা আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
তুরস্কের ইস্তাম্বুলের ফেইথ জেলায় হিরকা-ই শরিফ মসজিদে নবীজির (সা.) পোশাক ফের সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়। করোনা মহামারীর জন্য তা দুই বছর বন্ধ ছিল। ১ হাজার ৪০০ বছর ধরে এটি যত্নসহকারে সংরক্ষণ করে রাখা হয়েছে।

হযরত মুহম্মদ (সা.) ওফাত নেওয়ার আগেই সাহাবীদের জানিয়ে গিয়েছিলেন তাঁর পরিধানের জুব্বাটি পাবেন ইয়েমেন নিবাসী হযরত ওয়াইস করনি (রহ.)। হযরত ওমর (রা.) খলিফা হওয়ার পর হযরত আলীকে (রা.) নিয়ে কুফা নগরীতে যান। দরবেশ ওয়াইস করনিকে খুঁজে বের করে মহানবীর পবিত্র জামাটি তাঁর কাছে হস্তান্তর করেন।

ওয়াইস করনির বংশধররা অষ্টম শতাব্দী পর্যন্ত ইরাকে বসবাস করতেন। পরম যত্নে তারা মহানবির (সা.) জুব্বা সংরক্ষণ করেন। এক সময় করনি পরিবার ইরাক থেকে পশ্চিম তুরস্কে চলে যেতে বাধ্য হন। কুসাদাসির এজিয়ান শহরে বসতি স্থাপন করেন। ১৬১১ সাল পর্যন্ত তারা সেখানে ছিলেন।

১৬১১ সালে উসমানীয় সুলতান এবং খলিফা আহমেদ জানতে পারেন নবীজির (সা.) পোশাকটির কথা। প্রথমে তিনি জুব্বাটি নিজের কাছে রাখার সিদ্ধান্ত নেন। পরে আলেমদের পরামর্শে সিদ্ধান্ত বদলান। তখন তিনি ওয়াইস করনির বংশধরদের ইস্তাম্বুলে বসবাসের আমন্ত্রণ জানান।

সে সময় প্রতি বছর রমজান মাসে জনসাধারণকে নবিজির (সা.) জুব্বা দেখার সুযোগ দেওয়া হতো। দর্শকের সংখ্যা দিন দিন বাড়তে থাকায় সুলতান আব্দুল মেসিদের নির্দেশে হিরকা-ই শরীফ মসজিদের পরিসর বাড়ানো হয়। ১৮৫১ সাল থেকে মহানবির (সা.) জুব্বাটি সেখানে সংরক্ষিত রয়েছে।

এ জাতীয় আরো সংবাদ