আজ শুক্রবার,৬ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ,২০শে মে ২০২২ খ্রিস্টাব্দ,সকাল ৬:৩৭

নির্বাচনী সহিংসতায় ৬ খুন, আতংকের নগরী শৈলকুপা

Print This Post Print This Post

এইচ এম ইমরান, শৈলকূপা :
নির্বাচনী সহিংসতায় ঝিনাইদহের শৈলকুপায় ১০ দিনের ব্যবধানে ৬ জন খুনের ঘটনা ঘটেছে। শনিবার দুপুরে উপজেলার বগুড়া ইউনিয়নের বগুড়া পশ্চিমপাড়া গ্রামের আকবর খন্দকারের ছেলে ও সাবেক চেয়ারম্যান নজরুল বিশ্বাসের কর্মী কৃষক কল্লোল খন্দকার মাঠে পেয়াজ লাগাতে যায়। এসময় বর্তমান চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম শিমুলের কর্মী সর্মথরা তাকে অতর্কিত কুপিয়ে ও পিটিয়ে হত্যা করে। এদিকে সারুটিয়া ইউনিয়নে নৌকা প্রতিকের চেয়ারম্যান মাহমুদুল হাসান মামুনের কর্মী কাতলাগাড়ী গ্রামের আব্দুর রহিম, কৃত্তিনগর গ্রামের হারান বিশ্বাস, অখিল ও ভাটবাড়িয়া গ্রামের জসিমসহ ৪ জনকে কুপিয়ে ও ছুরিকাঘাত করে হত্যা করে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মীসমর্থকরা।

গেল ৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় কাতলাগাড়ী বাজারে নৌকার অফিসে অতর্কিত এ হামলার ঘটনা ঘটে। হামলায় হারান বিশ্বাস, আব্দুর রহিম, অখিল কুমার, রজব আলীসহ অন্তত ১০ জন গুরুতর আহত হয়। ভেঙ্গে ফেলা হয় নৌকার অফিস ও বঙ্গবন্ধুর ছবিসহ সকল চেয়ার টেবিল। আহতদের মধ্যে ঐ দিন রাতেই হারান বিশ্বাস হাসপাতালে নিহত হন।

২৯ ডিসেম্বর পৌর এলাকার কবিরপুর গ্রামের মৃত আহম্মদ আলীর ছেলে ও উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা ইকু শিকদারের কর্মী স্বপন নিহত হয়।
এরপর ৩ জানুয়ারী ভাটবাড়িয়া গ্রামের আরেক নৌকার কর্মী জসিম ও মিলনকে ছুরিকাঘাত করে। এরমধ্যে জসিম হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যায়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৬ জানুয়ারী অখিল কুমার ও ৮ জানুয়ারী আব্দুর রহিম নিহত হন।

এঘটনায় গুরুত্বর আহত হয়ে অন্তত ৬ জন বিভিন্ন স্থানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তাদের অবস্থাও আশংকাজনক বলে জানা গেছে।

নির্বাচনী সহিংসতায় মাত্র ১০ দিনের ব্যবধানে শৈলকুপায় ৬ খুনের ঘটনায় জনমনে আতংকের সৃষ্টি হয়েছে। অন্যদিকে ৭ জানুয়ারী সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান নায়েব আলী জোয়ার্দ্দারের দুধসর গ্রামের বাড়ীতে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এসময় বাড়ীঘর ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে পুলিশ অর্ধশত রাউন্ড ফাকা গুলি ছুড়েছে বলে জানা গেছে। একের পর এক হত্যকান্ড, লুটপাট, বাড়ীঘর ভাংচুর, মোটরসাইকেলে অগ্নিসংযোগসহ নানা ধরনের অপ্রিতিকর ঘটনায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতি হয়েছে বলে এলাকাবাসীর দাবী।

এবিষয়ে জানতে চেয়ে প্রতিবেদক শৈলকুপা থানার ওসি রফিকুল ইসলামকে ফোন দিলে তাকে পাওয়া যায়নি।

এ জাতীয় আরো সংবাদ